ইউটিউবের আদলে দেশীয় ভিডিও প্ল্যাটফর্ম আই-পরশ
ভিজ্যুয়াল কনটেন্ট ক্রিয়েটর তৈরিসহ দেশের ডিজিটাল বিনোদন ব্যবস্থাকে আরও বেশি স্বয়ংসম্পূর্ণ করাই আই-পরশের মূল উদ্দেশ্য।

ইউটিউবের আদলে দেশীয় ভিডিও প্ল্যাটফর্ম আই-পরশ

ইমিগ্রেশন নিউজ :

ইউটিউবের আদলে দেশের প্রথম মনেটাইজড ভিডিও প্ল্যাটফর্ম। নাম তার ‘আই পরশ’। এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বিভিন্ন টিভি চ্যানেল লাইভ দেখা, অন-ডিমান্ড ভিডিও দেখা কিংবা ভিডিও আপলোড করে অর্থ আয়সহ নানা সুযোগ সুবিধা রয়েছে। ১৩ এপ্রিল ‘আই-পরশ’ এর কার্যালয়ে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

আই-পরশে বিনা খরচে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন জনপ্রিয় টিভি চ্যানেলগুলোর লাইভ স্ট্রিমিং দেখা যাবে। পাশাপাশি বিভিন্ন ওয়েব সিরিজ, নাটক, সিনেমা, ফানি ভিডিও, বিভিন্ন সিরিয়াল দেখা যাবে। তবে প্রিমিয়াম ভার্সনও থাকবে। আই-পরশের মাধ্যমে দর্শকরা বিজ্ঞাপন ছাড়া ভিডিওসহ আরও অনেক এক্সক্লুসিভ কনটেন্ট দেখতে পারবেন।

আই-পরশে শুধু ভিডিওই দেখা যাবে না, ইনকামও করা যাবে। ভিডিও আপলোড দিয়ে কিংবা লাইভ স্ট্রিমিং করে। এখানে ইউটিউবের মতো চ্যানেল খোলা যাবে। তরুণ প্রজন্মের জন্য একটি উপযুক্ত প্ল্যাটফর্ম হবে আই-পরশ।

ইউটিউবের মতো আই-পরশেও রয়েছে ‘মনেটাইজেশন প্ল্যাটফর্ম’ যেখানে ভিডিও ভিউস ও কনটেন্টের জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে আপলোডকারী আয় করতে পারবেন। এখানে ভিডিও কপিরাইট ও কপিরাইট ক্লেইমের ব্যবস্থা রয়েছে। যাতে কেউ কারও কন্টেন্ট চুরি করতে না পারে কিংবা চুরি করলেও রিপোর্ট করে তা আবার ফেরত পেতে পারেন।

বিভিন্ন টিভি চ্যানেল কিংবা অনলাইন ডিজিটাল মিডিয়াগুলো ‘আাই-পরশ’ প্ল্যাটফর্মে যুক্ত হয়ে তাদের কনটেন্টগুলো আরও বেশি দর্শকের কাছে পৌঁছাতে পারবেন। পাশাপাশি বাড়তি ইনকামও করতে পারবেন। বিদেশি বিভিন্ন মনিটাইজড প্ল্যাটফর্মের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য ডিজিটাল বিজ্ঞাপনের সিপিএম মূল্য থাকে খুবই নগণ্য। অথচ বাংলাদেশ ছাড়া বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোতে তাদের সিপিএমের মূল্য অনেক বেশি। তাই এ ক্ষেত্রে দেশীয় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলো অধিক হারে ঠকে যাচ্ছে বিদেশি মনিটাইজ প্ল্যাটফর্মগুলোর কাছে। আই-পরশ কনটেন্টের মালিক ও ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলোর উপযুক্ত মূল্যায়ন করবে।

‘আই-পরশ’ প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে অন্যান্য ওটিটি প্ল্যাটফর্ম কিংবা ডিজিটাল ভিডিও প্ল্যাটফর্মগুলোর মধ্যে কোনো আন্তযোগ নেই। ফলে অন্য কোনো প্ল্যাটফর্ম যেমন- ইউটিউবে থাকা কনটেন্ট আই-পরশে থাকলেও কোনো সমস্যা নেই। কপিরাইট নিয়েও কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না। আই-পরশের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় কপিরাইট নিয়ন্ত্রণ করে। কপিরাইটের নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে কঠোর ভূমিকা পালন করবে। আই-পরশ যাতে প্রকৃত স্বত্বাধিকারী কিংবা কনটেন্ট ক্রিয়েটররা ক্ষতিগ্রস্ত না হন কিংবা কনটেন্ট চুরি না হয়।

আইপিটিভি ব্রডকাস্টারদের জন্যও আই-পরশ রেখেছে বিশেষ ব্যবস্থা। আইপিটিভি পরিচালনার জন্য প্রধান প্রয়োজনীয় জিনিসটি ‘স্ট্রিমিং সার্ভার’। একটি ভালোমানের স্ট্রিমিং সার্ভারের জন্য প্রতি মাসে আইপিটিভি ব্রডকাস্টারদের মোটা অংকের অর্থ গুনতে হয়। কিন্তু আই-পরশ সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এই ধরনের স্ট্রিমিং সার্ভার সুবিধা দেবে। এই স্ট্রিমিং ভিডিও ব্রডকাস্টাররা তাদের ওয়েবসাইট, অ্যাপ, ওটিটি প্ল্যাটফর্ম, আইপিটিভি ক্যাবল নেটওয়ার্ক ইত্যাদি জায়গায় ব্যবহার করতে পারবে।

আই-পরশ ব্যবহার করছে সর্বশেষ প্রযুক্তির ‘ক্লাউড ডেলিভারি নেটওয়ার্ক’ এবং ক্যাশিং টেকলোজি যাতে ব্যবহারকারীরা বাফার-ফ্রি ভিডিও দেখতে পারেন। বাংলাদেশ ছাড়াও বিশ্বব্যাপী আই-পরশের ভিডিও দেখা বা আপলোডের পাশাপাশি লাইভ স্ট্রিমিংও করা যাবে। এই প্ল্যাটফর্ম থেকে ইনকাম করা যাবে। আই পরশ এর সংযুক্ত হওয়ার জন্য কিংবা ভিডিও দেখার জন্য ও ভিডিও আপলোড দেওয়ার জন্য রয়েছে iPorosh মোবাইল অ্যাপ, ওয়েবসাইট: www.iPorosh.com ও স্মার্ট টিভি অ্যাপ।

আই পরশের নির্বাহী পরিচালক কাজী সাইফুল ইসলাম বলেন, বিদেশি বিভিন্ন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে প্রতি মাসে প্রচুর অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে। তাই আমাদের লক্ষ্য, দেশেই একটি বিকল্প ভালো মানের ডিজিটাল ভিডিও প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা। তরুণ সমাজের জন্য কাজের ক্ষেত্র তৈরি করা। দেশের টাকা দেশে রাখা।

প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজা সালেহ মাহমুদ বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য একটি সফল ভিডিও মনেটাইজড প্ল্যাটফর্ম হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা। আই-পরশ বিভিন্ন ক্রিয়েটর, ডিজিটাল মিডিয়া প্রতিষ্ঠান, অনলাইন পোর্টাল, আইপিটিভি ও প্রোডাকশন হাউজগুলোর বাড়তি ইনকামের মাধ্যম হবে। পাশাপাশি দর্শকরা বিনোদনমূলক ভিডিও, সংবাদ, টিভি চ্যানেল দেখার সুযোগ পাবেন। আই-পরশ শুধু দেশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে না, বিশ্বব্যাপী সংযুক্ত থাকা যাবে।

আই-পরশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সালাউদ্দিন সেলিম বলেন, বর্তমান প্রজন্মের তরুণ-তরুণীদের মেধা খাটিয়ে ইনকামের পথ তৈরি করে দেবে আেই-পরশ। ভিজ্যুয়াল কনটেন্ট ক্রিয়েটর তৈরিসহ দেশের ডিজিটাল বিনোদন ব্যবস্থাকে আরও বেশি স্বয়ংসম্পূর্ণ করাই আই-পরশের মূল উদ্দেশ্য।

Leave a Reply