ইতালিতে ১৫টি হলুদ জোন অঞ্চলে চলাফেরা শিথিল হচ্ছে
দেশটির সরকার ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলকে পৃথক করে এসব অঞ্চলে চলাফেরা শিথিল ঘোষণা করেছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী রোবেরতো স্পেরেন্সা শনিবার (২৪ এপ্রিল) নতুন নিয়মের তথ্য নিশ্চিত করেন।

ইতালিতে ১৫টি হলুদ জোন অঞ্চলে চলাফেরা শিথিল হচ্ছে

জমির হোসেন, ইতালি :

ইতালির ১৫টি অঞ্চলকে সোমবার (২৬ এপ্রিল) থেকে হলুদ জোন ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে দেশটিতে ওইদিন থেকে চলাফেরা শিথিল হচ্ছে। হলুদ জোনের অঞ্চলগুলোতে বার, রেস্টুরেন্ট, সিনেমা হল, থিয়েটারসহ সব প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালানো যাবে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সংক্রমণ আগের তুলনায় অনেক কমে এসেছে, তবে এখনও নিয়ন্ত্রণে নয়। এসব বিবেচনায় রেখে দেশটির সরকার ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলকে পৃথক করে এসব অঞ্চলে চলাফেরা শিথিল ঘোষণা করেছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী রোবেরতো স্পেরেন্সা শনিবার (২৪ এপ্রিল) নতুন নিয়মের তথ্য নিশ্চিত করেন। 

অন্যদিকে ইতালিতে এখনও দৈনিক গড়ে ১৫ হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে এবং তিন শতাধিক মৃত্যু হচ্ছে। দেশটিতে সাধারণ মানুষের মধ্যে টিকা দেওয়া হচ্ছে ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে ব্যক্তিদের। তবে নার্স, ডাক্তার ও প্রশাসনিক কর্মকর্তারা বয়সসীমার বাইরে রয়েছেন।

হলুদ জোনে ফিরে আসায় ইতালিয়ান প্রায় ৫০ মিলিয়ন নাগরিক বাইরে বের হয়ে রেস্টুরেন্ট ও বারে খেতে পারবেন। তবে কেউ রেস্টুরেন্টের ভেতরে বসতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে রেস্টুরেন্ট ও বারের বাইরে টেবিলে বসে খাওয়া যাবে। শুধুমাত্র সিনেমা হল ও থিয়েটারে চেয়ারে বসা যাবে। রাত ৯টার পর বন্ধ করতে হবে এসব প্রতিষ্ঠান, ১০টা থেকে চলবে কারফিউ।

এদিকে দেশটির প্রযুক্তি-বৈজ্ঞানিক কমিটির প্রযুক্তিবিদরা এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তারা মনে করছেন, মানুষের মধ্যে যোগাযোগের সুযোগে এ ভাইরাসটি আবার আঘাত হানতে পারে। অন্যদিকে ইংল্যান্ড নিজেদের মহামারির বাইরে বলে ঘোষণা করেছে। দেশটিতে ভ্যাকসিনের কারণে সংক্রমণ নব্বই ভাগ কমেছে, যা ইউরোপের জন্য লক্ষণীয়। ইতালি কঠিন পদক্ষেপ নেওয়ার পর ধারণা করা হচ্ছে, সংক্রমণের হার নিচে নেমে এসেছে, যদিও তা লক্ষণীয় মাত্রায় নয়। অন্যদিকে হলুদ জোনের ১৫ অঞ্চলে যেতে আগের মতো এখন আর প্রশাসনের কাছে কঠিন প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে না নাগরিকদের। পাশাপাশি পর্যটকরা নিরাপদে ভ্রমণ করতে পারবেন।

হলুদ জোনের আওতায় আসা ইতালির অঞ্চলগুলো হলো- আব্রুজ্জো, ক্যাম্পানিয়া, এমিলিয়া-রোমানা, ফ্রিউলি ভেনিজিয়া গিউলিয়া, লাজিও, লিগুরিয়া, লম্বার্ডি, মোলিস, মার্কে, পাইডমন্ট, বলজানো, ট্রেন্টো, টুসনি, আম্বরিয়া এবং ভেনেটো।

তবে ইতালির দক্ষিণের সারদেনিয়ায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সেখানে লাল জোন অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply