খরচের বাড়তি বোঝা প্রবাসীদের কাঁধে : বিকল্প কী ভাবা যায়?
দেশে ফিরলেই প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের বাড়তি খরচের বোঝা এখন প্রবাসীদের কাঁধে। ফলে করোনাকালে অতিরিক্ত উড়োজাহাজ ভাড়ার সঙ্গে যোগ হয়েছে হোটেল ভাড়া।

খরচের বাড়তি বোঝা প্রবাসীদের কাঁধে : বিকল্প কী ভাবা যায়?

ইমিগ্রেশন নিউজ ডেস্ক :

দেশে ফিরলেই প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের বাড়তি খরচের বোঝা এখন প্রবাসীদের কাঁধে। ফলে করোনাকালে অতিরিক্ত উড়োজাহাজ ভাড়ার সঙ্গে যোগ হয়েছে হোটেল ভাড়া। প্রবাসীরা বলছেন, সরকার প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিইনের জন্য যে ২৮টি হোটেল নির্ধারণ করে দিয়েছে, সেগুলোতে সর্বনিম্ন ভাড়া চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা। সর্বোচ্চ ২২ থেকে ২৫ হাজার টাকা। ১৪ দিন এসব হোটেলে কোয়ারেন্টিনে থাকার খরচ অনেক প্রবাসীর পক্ষেই বহন করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

প্রবাসীরা বলছেন, অন্যান্য দেশে সরকারি তত্ত্বাবধানে কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করা হয়। সাধারণ মানুষের চেয়ে কোয়ারেন্টিনে থাকা ব্যক্তিরা আরও স্বাচ্ছন্দ্যে থাকেন। আর বাংলাদেশের চিত্র উল্টো। সরকারকে এসব নামিদামি ও ব্যয়বহুল হোটেলের বিকল্প ভাবা উচিত। সর্বশেষ ১৫ এপ্রিল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ২৮টি হোটেলে প্রবাসীদের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা রেখে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। সেগুলো হলো- হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল, বেঙ্গল ক্যানারি পার্ক লিমিটেড, সিক্স সিজন্স হোটেল, ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট, রেডিসন ব্লু ঢাকা ওয়াটার গার্ডেন, হোটেল বেঙ্গল ইন, হোটেল স্প্রিং হিল অ্যাপার্টমেন্ট, রয়্যাল পার্ক রেসিডেন্স হোটেল, প্লাটিনাম রেসিডেন্স, গ্যালেসিয়া হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট লিমিটেড, হোটেল প্লাটিনাম, হোটেল গার্ডেন রেসিডেন্স, স্কাইলিংক লিমিটেড, হোটেল দ্য রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল, হলিডে এক্সপ্রেস, ওয়েস্ট পার্ক ইন রেসিডেন্স, ন্যাসেন্ট গার্ডেনিয়া, এনকারেজ দ্য রেসিডেন্স, ব্লু ক্যাসল হোটেল, রাফ্রেসিয়া সার্ভিসড অ্যাপার্টমেন্ট, লেকশোর হোটেল, দ্য ওয়ে ঢাকা, ডরিন হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট (সাবেক ফোর পয়েন্ট বাই শেরাটন), ন্যাসেন্ট গার্ডেনিয়া রেসিডেন্স, রেনেসাঁ ঢাকা গুলশান হোটেল, প্রিয় নিবাস স্টাইলিশ রেসিডেনশিয়াল হোটেল ও হোটেল অ্যারিস্টোক্রেট ইন লিমিটেড।

এসব হোটেলের মধ্যে সবচেয়ে কম দামের কক্ষ ভাড়া ও খাবার মিলে দিনে গড়ে ৩ হাজার ৭০০ টাকা দিতে হয়। এছাড়া রেডিসন, ইন্টারকন্টিনেন্টালের মতো পাঁচ তারকা হোটেলে প্রতি দিনের কোয়ারেন্টাইনের খরচ ১৮ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা।
প্রবাসীদের কোয়ারেন্টিনের মেয়াদ কমানোর পুনর্বিবেচনার বিষয়ে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) ভাষ্য, করোনায় আক্রান্ত অতি ঝুঁকিপূর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলো থেকে আসা যাত্রীদের জন্য হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এছাড়া বাহরাইন, কুয়েত ও কাতারের ক্ষেত্রে তিন দিনের কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক। আপাতত করোনার প্রাদুর্ভাব বিবেচনায় কোয়ারেন্টিন পুনর্বিবেচনার কোনো সুযোগ নেই।

এর আগে ১ মে থেকে শর্তসাপেক্ষে আন্তর্জাতিক কমার্শিয়াল ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত নেয় বেবিচক। তবে ফ্লাইট চালুর ক্ষেত্রে ৩৮টি দেশকে ঝুঁকিপূর্ণ ও অতি ঝুঁকিপূর্ণ বলে তালিকা করে তারা। এসব দেশ থেকে আগতদের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করা হয়।

Leave a Reply