জনগণের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে মিয়ানমার সংকটের সমাধান চায় চীন
মিয়ানমারের সার্বভৌমত্ব ও জনগণের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে সংকটের সমাধান চায় চীন।

জনগণের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে মিয়ানমার সংকটের সমাধান চায় চীন

ইমিগ্রেশন নিউজ :  চলমান সহিংসতার মাঝেই মিয়ানমার সংকট নিয়ে মুখ খুললো প্রতিবেশি চীন।
নির্দিষ্ট পক্ষে যাবে না বলে জানিয়েছে দেশটি। তবে মিয়ানমারের সার্বভৌমত্ব ও জনগণের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে সংকটের সমাধান চায় চীন।

রোববার দেশটির শীর্ষ কূটনীতিক, স্টেট কাউন্সিলর ওয়াং ইয়ি এমনটা জানিয়েছেন। চীন বলছে, ফেব্রুয়ারিতে মিয়ানমারে যেভাবে সামরিক বাহিনী ক্ষমতা নিয়েছে, চীন বিষয়টাকে সেভাবে দেখতে অনাগ্রহী। আরর এই সামরিক অভ্যুত্থানে চীনের জড়িত থাকার বিষয়ে যে খবর বেরিয়েছে তা একেবারে গুজব।

সংবাদ সম্মেলনে ওয়াং জানান, মিয়ানমারের সার্বভৌমত্ব ও জনগণের ইচ্ছাকে সম্মানের ভিত্তিতে সব পক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করতে আগ্রহী চীন। চলমান সংকট নিরসনে গঠনমূলক ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে বলে জানানো হয়। ফেব্রুয়ারির ১ তারিখে জান্তারা মিয়ানমারের ক্ষমতা দখলের পর পশ্চিমা দেশগুলো তীব্র নিন্দা জানালেও চীন এতোদিন স্থিতিশীলতার কথা ভেবে নিরব ও সতর্ক ছিলো। অবশেষে দেশটি মিয়ানমারের সংকট সমাধানে সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনায় অংশগ্রহণ করতে আগ্রহী।

সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে মিয়ানমারে প্রতিদিনই তীব্র বিক্ষোভ হচ্ছে। আন্দোলনে প্রতিদিনই সহিংস ঘটনা ঘটছে। দুদিন আগে সবচেয়ে বিধ্বংসি সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। যেখানে ১৮ জনের মতো আন্দোলনকারী পুলিশের গুলিতে নিহ

Leave a Reply