টিকা পাসপোর্ট কি? এ নিয়ে কেন এত আলোচনা
টিকা পাসপোর্ট কি?

টিকা পাসপোর্ট কি? এ নিয়ে কেন এত আলোচনা

ইমিগ্রেশন নিউজ : বিশ্ব থেকে করোনা কত দিনে নির্মূল হবে তা নিশ্চিত নয়। কিন্তু লকডাউন, শাটডউন করে কতদিন? উপায় তো বের করতে হবে। এই উপায়ের একটি বড় পদক্ষেপ ‘টিকা পাসপোর্ট’।ইতিমধ্যে, চীন, ইসরায়েলসহ কয়েকটি দেশ ভবিষ্যতে আন্তর্জাতিক ভ্রমণ বা পর্যটনের মতো করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনৈতিক খাত পুনরুজ্জীবিত করতে নিজেদের মতো করে টিকা পাসপোর্টের প্রচলন করেছে।যাঁরা করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছেন, তাঁদের একধরনের সনদ দেওয়া হচ্ছে। এতে ওই ব্যক্তিরা অবাধে দেশে ও দেশের বাইরে চলাচলের সুযোগ পাবেন।

মূলত এই টিকা পাসপোর্ট বলতে বোঝাচ্ছে  ছোট্ট একটি নথি,  যার মাধ্যমে কেউ কোভিড–১৯–এর টিকা নিয়েছেন, সে বিষয়টিকে প্রমাণ করা যাবে। এটি সই করা ও স্ট্যাম্পসংবলিত সনদ বা মুঠোফোনের কিউআর কোডও হতে পারে। যথাযথ কর্তৃপক্ষই এটি দেবে।

যুক্তরাজ্যের নফিল্ড কাউন্সিল অন বায়োথিক্সের চেয়ার ডেভ আর্চার্ড আল–জাজিরাকে বলেন, বিদেশে ভ্রমণ থেকে শুরু করে নাট্যশালা ও রেস্তোরাঁয় ঢোকার মতো নানা ক্ষেত্রে টিকা পাসপোর্ট কাজে লাগানো যেতে পারে। টিকা নেওয়ার বিষয়টি প্রমাণ করার এমন পদ্ধতি নিয়োগদানের ক্ষেত্রে ‘বৈষম্যমূলক’ পরিস্থিতি বা ‘দ্বিস্তরবিশিষ্ট সমাজ’–ব্যবস্থা সৃষ্টি করতে পারে বলে সতর্ক করে দেন ডেভ আর্চার্ড।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলেছন, করোনা নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন দেশ গণহারে টিকাদান কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। করোনাকালে আন্তর্জাতিক ভ্রমণ স্বাভাবিক করতে সীমান্তগুলো আবার নিরাপদে খুলে দেওয়া এবং কঠোর লকডাউন কর্মসূচির কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়া অর্থনীতিকে গতিশীল করার একটি সম্ভাবনাময় কৌশল হয়ে উঠেছে টিকা পাসপোর্ট।

টিকা গ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করা গেলে, অর্থাৎ টিকা পাসপোর্ট এ মহামারি নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ মোড় সৃষ্টিকারী পদক্ষেপ হয়ে দাঁড়াতে পারে। এতে টিকা নেওয়া পর্যটকদের সার্বজনীনভাবে স্বাগত জানাতে পারে বিভিন্ন দেশ। পাশাপাশি সংক্রমণের আতঙ্ক কাটিয়ে বিশেষত পর্যটনের মতো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত খাতগুলো পুরোপুরি খুলে দিতে পারে দেশগুলো।

বিদেশে ভ্রমণ থেকে শুরু করে নাট্যশালা ও রেস্তোরাঁয় ঢোকার মতো নানা ক্ষেত্রে টিকা পাসপোর্ট কাজে 
লাগানো যেতে পারে।

নিজস্ব ধাঁচে টিকা পাসপোর্ট বা সনদের ব্যবহার এরই মধ্যে শুরু করে দিয়েছে কিছু দেশ। যদিও এই ধারণা নিয়ে কোনো বৈশ্বিক ঐকমত্য এখনো প্রতিষ্ঠিত হয়নি।

উদাহরণস্বরূপ ইসরায়েলের কথা বলা যায়। দেশটি গ্রিন পাস নামে সরকার অনুমোদিত টিকা পাসপোর্ট চালু করেছে। এই সনদের মাধ্যমে সেখানকার লোকজন প্রমাণ দেখাতে পারছেন যে তাঁরা কোভিড–১৯ প্রতিরোধে টিকা নিয়েছেন ও তাঁরা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে যথেষ্ট সক্ষমতার অধিকারী।

এই পাসপোর্টের মেয়াদ ছয় মাস। টিকা পাসপোর্টধারীরা করোনা বিধিনিষেধের আওতায় থাকা বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে অনেকটাই বাধাহীনভাবে অংশ নিতে পারছেন। যেমন তাঁরা ব্যায়ামাগার, রেস্তোরাঁ বা নাট্যশালায় যেতে পারছেন। বিদেশে যাওয়ার সুযোগ ও কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থাও এড়াতে পারছেন।

টিকা পাসপোর্ট চালুর মাধ্যমে ইসরায়েল গ্রিস ও সাইপ্রাসের সঙ্গে একটি চুক্তিতেও এসেছে। এর অধীন টিকার সনদধারী ব্যক্তিরা এ তিন দেশের মধ্যে অবাধে যাতায়াত করার সুযোগ পাচ্ছেন। একই রকমের ব্যবস্থা নিয়েছে চীন ও বাহরাইন। অন্যদিকে ডেনমার্ক ও সুইডেন এমন কর্মসূচি চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছে।