টোকিও অলিম্পিক : শেষ  মুহূর্তে কী বাতিল হবে ?
এ মুহূর্তে টোকিও অলিম্পিক বাতিল “অপরিহার্যরুপে অসম্ভব” — ( আই.ও.সি.)

টোকিও অলিম্পিক : শেষ মুহূর্তে কী বাতিল হবে ?

ননীগোপাল দেবনাথ :

ইন্টারন্যাশনাল অলিম্পিক কমিটির ( আই.ও.সি.) দীর্ঘকালের মেম্বার ডিক পাউন্ড বিশ্বাস করেন অলিম্পিক গেইম এবার অবশ্যই এগিয়ে নিতে হবে, শেষ মুহূর্তে বাতিল করা প্রায় অপরিহার্যরুপে অসম্ভব। মিডিয়ার সাথে সাক্ষাৎকারে তিনি এমন মন্তব্য করেন। পাউন্ড দৃঢ়তার সাথে বলেন, অংশগ্রহণকারী দেশের খেলোয়াড়রা অনেকে প্রস্তুত, তারা খেলতে আসলে এই মহামারীর মাঝে সব রকম সুরক্ষার ব্যবস্থা থাকবে। শতভাগ অঙ্গীকার কারো জীবনে কোন দেশে নেই বর্তমানে পরিস্থিতিতে, আমাদের যুক্তিযুক্তভাবে এগোতে হবে।

কোভিড-১৯ সংক্রমণ আছে, অলিম্পিক ভিলেজে টেস্টের হার বৃদ্ধি করা হবে, পরিসংখ্যানের প্রতি লক্ষ্য রেখে যে কোন সময় কেউ আক্রান্ত ধরা পড়লে সাথে সাথে বিচ্ছিন্ন করে অন্তরীণ রাখার ব্যবস্থা করা হবে।

ইন্টারন্যাশনাল অলিম্পিক কমিটিতে দীর্ঘতম পরিবেশন করা সদস্য ডিক পাউন্ড বৎসরের প্রথম দিকেই এমনটা ব্যক্ত করেছেন যে, গেইম শতকরা ৭৫ ভাগ সফলতা পাবে। এখন তিনি বলতে চাইছেন সম্ভবত সংখ্যা আরো বেশী হবে কারণ করোনা ভাইরাসের বিশেষজ্ঞগণ অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন, পরিবেশ নিয়ন্ত্রণের দিকে। “আমাদের পরিকল্পনা ও কর্ম সম্পাদনা দলের কেউ গেইম বাতিল করার কথা বিবেচনায় নিচ্ছেন না”, এমন মন্তব্যও তার।

আই.ও.সি. যদিও দৃঢ় সংকল্পে অটল, আজ জাপানে জনমনে নৈরাশ্য ও সতর্ক থাকার প্রবণতা, যেহেতু এখনো কোভিড-১৯ নিয়ে তারা লড়ছে। হোস্ট দেশ বলে হাজার হাজার প্রতিযোগী দেশ বিদেশ থেকে টোকিও শহরে আসবে, সংক্রমণ বয়ে আনার সম্ভাবনা প্রবল। যেখানে জাপান চতুর্থ করোনার ঢেউ নিয়ে সংগ্রামে রত, তাই স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞগণ ও বড় বানিজ্যের নেতৃবৃন্দ পটভূমি পরিবর্তন চাইছে অর্থাৎ গেইম বাতিলের পক্ষে তারা বেশী আগ্রহী।

মে মাসের (২০২১) প্রথম দিকে টোকিও ডাক্তারদের এসোসিয়েসন (সদস্য ৬০০০) প্রায় ৩ লাখ ৫০ হাজার লোকের সাক্ষর সংগ্রহ করে আই.ও.সি. এর নিকট এক দরখাস্ত জমা দেয় গেইম বাতিল করার প্রয়াসে।

কিন্তু পাউন্ড বলতে চাইছেন, আগামী অল্প সময়ের মাঝেই গেইম হতে চলেছে, এবং এটি হবে আশার প্রতীকী প্রতিযোগিতা বা গেইম, বিশ্ব দেখবে সঙ্কটপূর্ণ সময়েও আমরা সাফল্য নিয়ে এগোতে জানি। তিনি আরো বলেন, “অত্যন্ত জটিলতার মাঝেও, এই বহুসংখ্যক ও সমৃদ্ধ কর্মযজ্ঞে যদি বিশ্বের খেলোয়াড়দের যুগপৎ মিলাতে পারি এবং সাধ্য অনুযায়ী উল্লেখযোগ্য ঝুঁকি বিনা সম্পন্ন করতে পারি, সেটি হবে আশার বাণী, আমাদের মহৎ অর্জন”।

আই.ও.সি. আয়োজকরা বিশ্বের সকল প্রতিযোগীদের উৎসাহিত করেন জাপানে আসার পূর্বেই যেন তারা ভ্যাকসিন প্রদান করেন, তাছাড়া কোভিড-১৯ দলিল ও সীমাবদ্ধতা নামে একটি বইতে সব পথ নির্দেশনা রাখা হবে যাকে তারা বলছেন “প্লে বুক”, এটি ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন দ্বারা অনুমোদিত একটি ক্রিয়াকলাপ, চিকিৎসা এবং আইনত ভিত্তিতে এগিয়ে যাওয়ার পন্থা।
আই.ও.সি. প্রেসিডেন্ট থমাস ব্যাচ বলেন যে বর্তমানে আমাদের প্রধান কেন্দ্রবিন্দু কিভাবে অত্যন্ত নির্বিঘ্নে ও নিরাপদে ক্রীড়া প্রদর্শন অর্পণ করা যায়। ”আমরা অলিম্পিক গেইম স্থগিত না করে চূড়ান্ত বৃত্তে প্রবেশ করতে যাচ্ছি, যখন বিভিন্ন দেশের ক্রীড়াবিদগণ নিজ নিজ ক্রীড়ায় একাগ্রতা নিয়ে অনুশীলন করে চলেছেন,” আন্তর্জাতিক ফেডারেসান ফোরাম কে বিচার, বুদ্ধিযুক্ত প্রস্তাবে থমাস জানান। “এই চূড়ান্ত ও প্রসারিত কাজে, আমরা আয়োজকরা আজ সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ভিত্তিক নিরাপদ এবং সুরক্ষিত অলিম্পিক গেইম অর্পণ করতে ব্রতী সবার জন্য—ক্রীড়াবিদগণ, সমস্ত অংশগ্রহণকারী, প্রশংসনীয় হোস্ট ও জাপানের কল্যাণময় জনগণ”। “এ কারণে, আমাদের সকল জাপানী অংশীদার এবং বন্ধুরা এক সঙ্গে মিলে এমন পরিবেশ গড়তে প্রয়াসী যে, ব্যাপক ও বিস্তৃত কোভিড-১৯ প্রতিব্যবস্থা থাকবে যাতে করে ক্রীড়াবিদগণ নিশ্চিন্ত ও নিরাপদ বোধ করে”।

অলিম্পিক মশাল যখন হিরোসিমা পার হয়েছে আয়োজকরা মশালের পালা বদল দৌড় প্রধান সড়কের বাইরে রেখেছে। এবার মশাল প্রজ্বলন অনুষ্ঠানে কোন দর্শক আমন্ত্রণ করা হয় নি। আই.ও.সি. প্রেসিডেন্ট থমাস ব্যাচ তার পরিকল্পিত জাপান সফর বাতিল করেছেন। হিরোশিমাসহ হোস্ট শহর টোকিও এবং আরো ৭ টি এলাকায় কোভিড-১৯ এর চতুর্থ ঢেউয়ের কারণে জরুরী অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।

ক্রীড়াসূচি সংকোচনের ওপর জোর দেওয়া অপরিহার্য হয়ে পড়েছে, বর্তমান কোভিড পরিস্থিতির প্রয়োজনে। জাপান অদ্যাবধি ভাইরাসের বিস্ফোরক প্রাদুর্ভাব এড়াতে পেরেছে, শুরু থেকে তাদের মোট ১২ হাজারের কম লোকের প্রয়াণ হয়েছে। তবে এই প্রাণহানির বেশিরভাগ ঘটেছে ২০২১ সালে। সর্বশেষ সংক্রমণের ঢেউ এসেছে ভাইরাস রূপান্তরের ফলে যখন ভ্যাকসিন দেওয়াও ধীর গতিতে চলছিল। অলিম্পিক গেইম আগামী স্বল্প সময়ের মাঝে শুরু হতে চলছে, প্রায় ১৫ হাজার ক্রীড়াবিদ দুইশত দেশ থেকে জাপানে প্রবেশ করতে যাচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই জাপানের জনমনে উদ্বেগ, শতকরা ৬০ ভাগ লোকের মত অলিম্পিক একেবারেই স্থগিত করা।

ইতোমধ্যে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা প্রথম বারের মত জনমতের নিকট নম্রভাবে স্বীকার করে বলেছেন, “সরকার অলিম্পিক গেইমকে সব কিছুর উর্ধে প্রাধান্য দেবে না”—তবে চূড়ান্তভাবে সিদ্ধান্ত আই.ও.সি. কে নিতে হবে। প্রকৃতপক্ষে গেইম বাতিলের নিয়ন্ত্রণ তাদের হাতে এবং আদৌ গেইম স্থগিত করা সম্ভব কিনা ভেবে দেখা হচ্ছে।

আই.ও.সি. এবং হোস্ট শহর টোকিওর মাঝে যে চুক্তি সেটি অত্যন্ত সহজবোধ্য : বাতিল সংক্রান্ত নিবন্ধে সুস্পষ্ট যে, হোস্ট শহর নয়, একমাত্র অধিকার অলিম্পিক পরিচালন কমিটির। ফলে বলা যায় গেইম একচেটিয়া সম্পত্তি অলিম্পিক কমিটির। বাতিলকে ন্যায়সঙ্গত করার একটি কারণ দেওয়া রয়েছে, যেমন যুদ্ধ বা নাগরিক কোন বিশৃঙ্খলা যদি অংশগ্রহণকারী খেলোয়াড়দের নিরাপত্তার বিশেষ হুমকি বলে আই.ও.সি. বিশ্বাস করে। বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা মহামারীকে যুক্তিযুক্তভাবে তেমনি ভীতিপ্রদ বলা যেতে পারে।

অলিম্পিক সনদও আরো নির্ধারণ করে, ক্রীড়াবিদদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাকে বলা হয়, “নিরাপদ ক্রীড়া ব্যবস্থাপনা”।

পরিস্থিতি বিবেচনায়, চুক্তির মধ্যে বিভিন্ন ধারা অনুসারে জাপান যদি একতরফাভাবে চুক্তিটি বাতিল করতে যায় তাহলে মোটের উপর ঝুঁকি এবং ক্ষতি দুটোই জাপানের ঘাড়ে পড়ার আশঙ্কা।আইন বিশষজ্ঞগণ বলছেন, চুক্তিগুলি নির্দিষ্ট কিছু সম্ভাব্য ঘটনার উল্লেখ করে, কিন্তু কোভিড-১৯ পরিস্থিতি স্পষ্টত অভূতপূর্ব।

অলিম্পিক বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া ইভেন্ট, ব্রডকাস্টিং স্পনসরশিপের ক্ষেত্রে জাপান এবং আই.ও.সি.অংশীদার। এটি একটি বিশাল ক্রীড়াসূচি এবং এখানে সকল পক্ষের জন্য বিশাল চুক্তিগত বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সুতরাং, একমাত্র বাস্তব সম্মত পরিস্থিতি জাপান আই.ও.অসি.র সাথে যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে তাদের চুক্তির কাঠামোর মধ্যে থেকে।

জাপানের কেন্দ্রীয় সরকার শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১ করোনাভাইরাস জরুরী অবস্থা টোকিওসহ নয়টি অঞ্চলের জন্য বাড়িয়েছে ২০ জুন পর্যন্ত। টোকিও-তে নির্ধারিত গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাত্র একমাস সময় হাতে থাকবে তখন।

সর্বাধিক অগ্রাধিকার অবশ্যই একটি দেশে মূল কাঠামো বজায় রাখা যাহা নাগরিকদের জীবন, স্বাস্থ্য এবং জীবিকা রক্ষা করতে সহায়ক, আই.ও.সি. কে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রেখে চলতে হবে।

Leave a Reply