দেশের অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে চায় জাপানি কোম্পানি
বাংলাদেশের অবকাঠামো খাতে ব্যবসা বাড়াতে জাপানি কোম্পানি টিওএ কর্পোরেশন'র পরিকল্পনা

দেশের অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে চায় জাপানি কোম্পানি

ইমিগ্রেশন নিউজ ডেস্ক

বাংলাদেশে ব্যবসা কার্যক্রম বাড়ানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করছে ১৯০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত  জাপানি প্রকৌশল কোম্পানি টিওএ কর্পোরেশন।পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটি ২০২০ সালে এদেশে একটি শাখা অফিস খুলেছে এবং এরপর থেকে ফরেন ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট প্রমোশন প্রজেক্ট (এফডিআইপিপি)’র আওতায় বাংলাদেশ স্পেশাল ইকোনোমিক জোন ডেভেলপমেন্টের জন্য ভূমি উন্নয়নে অবদান রেখে চলেছে। 
  
এছাড়াও, টিওএ বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে ব্রিজ নির্মাণ প্রকল্পে অন্য দুটি জাপানি কোম্পানি ওবায়াশি কর্পোরেশন ও জেএফই ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশনের সাথে যৌথ উদ্যোগে কাজ করছে।  জাপান এক্সটার্নাল ট্রেড অর্গানাইজেশনের (জেইটিআরও) তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে বাংলাদেশে মোট ৩২১টি জাপানি কোম্পানি তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ২০১০ সালে এ সংখ্যা ছিল ৮৩টি ।  

বাসসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে টিওএ কর্পোরেশন বাংলাদেশ অফিসের মহাব্যবস্থাপক মিৎসুহিরো তোরিই বাংলাদেশে শুধু জাপানের ওডিএ প্রকল্পগুলোতেই নয়, অধিকন্তু অন্যান্য ভৌত-অবকাঠামো উন্নয়নমূলক প্রকল্পগুলোতেও কাজ করার আগ্রহ ব্যক্ত করেছেন।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি ঘন জনবসতিপূর্ণ দেশ হওয়ায় এখানে ব্যবসার বহুমুখী সুযোগ রয়েছে এবং বাংলাদেশে এই বৃহৎ বাজার ও নানা-রকম ব্যবসার সুযোগ বিনিয়োগকারীদের এদেশে আসতে ও তাদের ব্যবসা বাড়াতে আকৃষ্ট করছে।

বাংলাদেশে অধিকতর বিনিয়োগের লক্ষ্যে তিনি জটিল কর ব্যবস্থা, উচ্চ শুল্ক হার ও উচ্চ আমদানি-রপ্তানি শুল্ক হ্রাস করতে এবং বিদেশী বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ করতে প্রশাসনিক ব্যবস্থা সহজ করাসহ ব্যবসা ও বিনিয়োগের বিভিন্ন বাধা দূর করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তোরিই বলেন, বাংলাদেশে ব্যবসা পরিচালনা ও বিনিয়োগ বাড়ানোর লক্ষ্যে তাদের বিভিন্ন স্থানীয় কোম্পানির সাহায্য ও সহযোগিতার প্রয়োজন। তিনি এ ধরনের স্থানীয় কোম্পানিগুলোর প্রতি তাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে ও সহযোগিতার হাত বাড়ানোর আহ্বান জানান।
তিনি আরো বলেন, ব্যবসায়িক সম্পর্কের ক্ষেত্রে সঠিক ও স্বচ্ছ তথ্য বিনিময় পরিহার্য এবং এটা দীর্ঘ মেয়াদে সম্পর্ক বজায় রাখতে বন্ধন টেকসই ও সুদৃঢ় করে।  

হলি আর্টিজানে সন্ত্রাসী হামলার পর কার্যকর ও শক্তিশালী নিরাপত্তামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য তিনি বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানান।

টিওএ কর্পোরেশন বাংলাদেশ অফিসের উপ-মহাব্যবস্থাপক কাজুও তাশি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের পর যে কয়টি দেশ সর্ব-প্রথম বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দিয়েছিল জাপান তাদের অন্যতম এবং এই সূত্র ধরে তখন থেকেই বন্ধু-প্রতিম দেশ দুটির জনগণের মধ্যে উষ্ণ আন্তরিক ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দিন দিন আরো জোরদার হচ্ছে। বাংলাদেশের ইতিহাসে জাপান হচ্ছে সবচেয়ে বড় দ্বিপক্ষীয় উন্নয়ন অংশীদার এবং দুই দেশের মধ্যকার অর্থনৈতিক সম্পর্ক অব্যাহতভাবে বৃদ্ধি পেয়েই যাচ্ছে এবং এটাই জাপানি কোম্পানিগুলোর বাংলাদেশে বিনিয়োগের প্রধান কারণ।  

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে উত্তরনের লক্ষ্যে এবং ২০৪১ সাল নাগাদ একটি উন্নত অর্থনৈতিক দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে বেশ কয়েকটি মেগা-অবকাঠামো প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।  

১৯০৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে টিওএ কর্পোরেশন পোতাশ্রয় ও সংশ্লিষ্ট স্থাপনা নির্মাণ, ড্রেজিং ও নাব্যতা পুনরুদ্ধার, উপকূলীয় বিভিন্ন ধরনের ভবন ও বিমানবন্দর নির্মাণ, নৌ অবকাশ স্থাপনা, মালামাল সরবরাহের জন্য গুদাম, কারখানা ও বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করে আসছে।

Leave a Reply