পর্তুগালে বাংলাদেশি প্রবাসীর অনন্য উদ্যোগ ‘হেল্প পয়েন্ট’
পর্তুগালে বাংলাদেশি প্রবাসীর অনন্য উদ্যোগ ‘হেল্প পয়েন্ট’

পর্তুগালে বাংলাদেশি প্রবাসীর অনন্য উদ্যোগ ‘হেল্প পয়েন্ট’

ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী,পর্তুগাল :

করোনা মহামারি সারাবিশ্বে এক নতুন পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। দেশে-বিদেশে অনেক সচ্ছল মানুষ‌ও নিঃস্ব হয়েছেন। তাই পর্তুগাল প্রবাসী বাংলাদেশি সমাজকর্মী ও সাংবাদিক মোহাম্মদ শাহজাহানের উদ্যোগে এবং বায়তুল মোকাররম ইসলামিক সেন্টারের সহযোগিতায় মসজিদের বারান্দায় ‘হেল্প পয়েন্ট’ নামে একটি কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।

শনিবার (২২ মে) মাগরিরের নামাজ শেষে উপস্থিত মুসল্লিরাসহ প্রথম পর্যায়ে নানা বয়সের মানুষের অব্যবহৃত বা ব্যবহৃত (পরিচ্ছন্ন ও ব্যবহারযোগ্য) পোশাক সামগ্রী নিয়ে এ আয়োজনের উদ্বোধন করা হয়।

এ কার্যক্রমে উদ্যোক্তা মোহাম্মদ শাহজহান জানান, বর্তমানে নির্দিষ্ট পোশাক সামগ্রী থাকলেও ধীরে ধীরে মানুষের নতুন ধরনের নিত্য ব্যবহার্য পণ্য যুক্ত হবে। এই হেল্প পয়েন্ট থেকে যে কোনো ব্যক্তি তার পছন্দমতো জিনিস নিয়ে যেতে পারবেন এবং অপ্রয়োজনীয়, অব্যবহৃত বা ব্যবহৃত (পরিচ্ছন্ন ও ব্যবহারযোগ্য) জিনিসগুলো এখানে অপরের প্রয়োজনে রেখে যেতে পারবেন।

উদ্বোধনকালে বায়তুল মোকাররম ইসলামিক সেন্টারের সভাপতি রানা তসলিম উদ্দিন জানান, ইতোপূর্বে আমরা এ ধরনের একটি প্রকল্প হাতে নেওয়ার চেষ্টা করেছি, কিন্তু স্থান সঙ্কুলান না হওয়ায় তা কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। তবে বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে এ বিষয়টি গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করে আমরা সহযোগিতা করার চেষ্টা করছি। আশা করছি, এই কার্যক্রম ধীরে ধীরে বড় আকার ধারণ করবে এবং প্রবাসীদের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। তিনি সবাইকে ওই কার্যক্রমকে সফল করে তোলার আহ্বান জানান।

উদ্যোক্তা মোহাম্মদ শাহজহান আরও বলেন, কমিউনিটি সাংবাদিকতায় অবদান রাখার কারণে প্রতিনিয়তই প্রবাসীদের বিভিন্ন দুঃখ-দুর্দশার গল্প শুনতে পাই, তাই এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন তথ্য প্রদান করার পাশাপাশি মানুষের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের কথা বিবেচনা করে আমার এই চেষ্টা। যদিও কম বা বেশি সবারই ক্রয় ক্ষমতা রয়েছে, তদুপরি এর মধ্যে মহামারি কিছুটা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। তাছাড়া ইসলাম ধর্মের রীতি অনুযায়ী এটি মিতব্যয়িতার একটি অংশ। আমাদের অপ্রয়োজনীয় জিনিসটি ফেলে না রেখে অথবা ধ্বংস না করে যদি এটি অপরের কাজে আসে তাহলে তা একপ্রকার দান হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে। তাছাড়া আমাদের মধ্যে ভাতৃত্বের সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে, যা দুনিয়া এবং আখেরাতের জন্য সুফল বয়ে আনবে।

উদ্বোধনকালে বায়তুল মোকাররম মসজিদ লিসবন ইমাম অধ্যাপক মাওলানা আবু সাঈদ ছাড়াও স্বাস্থ্যবিধি মেনে আরও কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন। সবাই সাধুবাদ জানিয়ে এ কার্যক্রমকে সফল করতে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

Leave a Reply