পর্তুগালে শিথিল হচ্ছে বিধিনিষেধ
প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণায় দেশটিতে বসবাসরত নাগরিকদের জীবনযাত্রায় প্রায় শতভাগ স্বস্তি ফিরেছে।

পর্তুগালে শিথিল হচ্ছে বিধিনিষেধ

ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল :

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে থাকায় আগামী ১৪ জুন থেকে জারি করা বিধিনিষেধ শিথিল হচ্ছে পর্তুগালে। তুলে নেওয়া হচ্ছে প্রায় ৯০ শতাংশ বিধিনিষেধ। স্থানীয় সময় বুধবার (২ জুন) দেশটির প্রধানমন্ত্রী আন্তোনিও কস্তা মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে নাগরিকদের উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে এর বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী দুই ধাপে জীবনযাত্রার স্বাভাবিক হচ্ছে। প্রথম ধাপে ১৪ জুন থেকে টেলি ওয়ার্ক শিথিল করা হয়েছে। ওইদিন থেকে রেস্টুরেন্টের ভেতরে একই টেবিলে ৬ জন ও বাইরে ১০ জন বসতে পারবেন। মালিকরা রেস্টুরেন্টগুলো রাত ১টা পর্যন্ত খোলা রাখতে পারবেন, কিন্তু খাবারের অর্ডার নিতে পারবেন সাড়ে ১২টা পর্যন্ত।

বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো পূর্বের নিয়ম অনুযায়ী পরিচালিত হতে পারবে। থাকছে না মহামারিতে আরোপিত সময় সংক্রান্ত কোন বাধা নিষেধ। সুপার মার্কেট মিনি মার্কেট এর আওতাভুক্ত থাকছে। মিউজিয়াম বা সিনেমা হলগুলো মোট ধারণ ক্ষমতার ৫০ শতাংশ দর্শনার্থী নিয়ে খোলা রাখা যাবে। স্টেডিয়াম বা মাঠগুলোতে ৩৩ শতাংশ দর্শক নিয়ে খেলা পরিচালনা করা যাবে। তবে এক্ষেত্রে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী জানান, আগামী ২৮ জুন থেকে নাগরিক সেবা কেন্দ্রগুলো পূর্বনির্ধারিত অ্যাপয়েনমেন্ট ছাড়াই সেবা প্রদান করতে পারবে। গণ-পরিবহনগুলো যাত্রী নিয়ে স্বাভাবিক নিয়মের মতো নির্দিষ্ট মাত্রায় চলাচল করতে পারবে।

তবে ব্যতিক্রম সিদ্ধান্ত রয়েছে পানশালা ও ডিস্কোর জন্য। আগামী আগস্ট পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকবে। প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, এজন্য ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠানগুলো সরকারের সহযোগিতা পাবে।

পর্তুগাল ইতিপূর্বেই করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণ করে অনেকটাই স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছে। প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণায় দেশটিতে বসবাসরত নাগরিকদের জীবনযাত্রায় প্রায় শতভাগ স্বস্তি ফিরেছে।

Leave a Reply