বিদেশে যাওয়ার সময় যাত্রাপথে করণীয়

বিদেশে যাওয়ার সময় যাত্রাপথে করণীয়

ইমিগ্রেশন নিউজ ডেক্সবিদেশে যাওয়ার পথে যা যা নিতে হবে তার একটি তালিকা তৈরি করুন।

যে ব্যাগটি বিমানে নিজের সাথে রাখবেন সেখানে টাকা-পয়সা, গহনা, ভ্রমন ও চাকুরী সংক্রান্ত কাগজপত্র রাখুন এবং যে ব্যাগটি বিমানের লকারে দিবেন, সেটির ওজন পরীক্ষা করবেন এবং ২০ কেজির মধ্যে ওজন রাখবেন ।

ব্যাগটি দড়ি বা প্যাকিং টেপ দিয়ে শক্ত করে বেধে নিতে হবে, যাতে যাত্রাকালীন সময়ে ব্যাগ ছিঁড়ে না যায়। ভ্রমণের জন্য হালকা কিন্তু শক্ত উপাদান দিয়ে তৈরি এবং ভাল তালার ব্যবস্থাসহ ব্যাগ কিনবেন ।

প্রতিটি ব্যাগে নাম, ঠিকানা ও ফোন নাম্বার লিখেবেন।

কখনোই ধারালো বস্তু, যেমন- বেড, কাঁচি, ছুরি ইত্যাদি সিকিউরিটি চেকের সময় ধরা পড়ে এবং ফেলে দেয়া হয়। তাই নিষিদ্ধ কোনো জিনিস যেমন- আগ্নেয়াস্ত্র ও বিস্ফোরকজাতীয় পর্দাথ, নিষিদ্ধ মাদক ও ড্রাগ, আগুন ধরে এমন তরল পর্দাথ (লাইটার), দুর্গদ্ধ বের হয় এমন পদার্থ, মাংস, দুধ, ডিম ও অন্যান্য পোল্ট্রিজাতীয় খাবার , ফুল, ফল, সবজি, পান, গুল, সাদাপাতা ইত্যাদি ব্যাগে নিবেন না। এছাড়াও প্লেন ও এয়ারপোর্টে ধূমপান এবং প্লেনে মোবাইল ফোন ও ট্রানজিষ্টার রেডিও ব্যবহার করা নিষেধ।

অপরিচিত ব্যক্তির দেয়া কোন জিনিসই বহন করবেন না ।

ইমিগ্রেশন

কাউন্টারে প্রার্থীর পাসপোর্ট, ভিসা, জনশক্তি ব্যুরোর ছাড়পত্র ইত্যাদি পরীক্ষা করে সঠিক থাকলে তবেই পাসপোর্ট সিলমোহর করে প্রার্থীকে ভেতরে প্রবেশ করার অনুমতি দেয়া হয় এবং সেখানে বিমানে আরোহণের পূর্ব পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। ইমিগ্রেশনের সামনে লাইন দিয়ে দাঁড়ান এবং আপনার পাসর্পোট, ভিসা, ইমিগ্রেশন ও কাষ্টমস ফরমসহ তৈরী থাকুন। অফিসার আপনার সপোর্টে ওই দেশে যাওয়ার তারিখসহ সিল দিয়ে দিবে।

বিমানে যা করবেন

বিমানে আরোহণের পূর্বে ইংরেজি ও বাংলায় মাইক্রোফোনে ঘোষনা করা হবে এবং ডিসপ্লে বোর্ড ও টেলিভিশন মনিটরে দেখানো হবে।

ঘোষণার পরই বোর্ডিং-কার্ড হাতে নিয়ে বিমানের দিকে অগ্রসর হতে হয়।

বিদেশে পৌঁছানোর পর বিমানবন্দরে করনীয়

বিদেশে পোঁছানোর পর বিমানবন্দরে বেশ কিছু কাজ থাকে, যেগুলো সম্পর্কে ঠিক মত জানা না থাকলে হতে হয় বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন। তাই জেনে নিন, বিদেশে পোঁছানোর পর বিমানবন্দরে করণীয় কাজ গুলো-

১) ব্যাগ সংগ্রহ: ব্যাগ সংগ্রহের জন্য কনভেয়ার বেল্টের সামনে দাঁড়াতে হবে। কনভেয়ার বেল্টের ওপর আপনার ফ্লাইট নাম্বার দেয়া থাকবে, সেটা খেয়াল করতে হবে।

২) কাষ্টমস: আপনার কাষ্টমস ডিক্লারেশন ফরম সাথে রাখুন এবং কাষ্টমস অফিসার চাইলে তা দেখান।

৩) হারানো ব্যাগ খোঁজা: বেল্টে ব্যাগ না পাওয়া গেলে বা ব্যাগ হারিয়ে গেলে সাথে সাথে এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে এবং ক্লেইম ফরম পূরণ করতে হবে। প্রয়োজনে তথ্যকেন্দ্রের সহায়তা নিতে পারেবেন। এয়ারলাইন্স আপনার ব্যাগ খুঁজে আপনার ঠিকানায় যোগাযোগ করে আপনার হারানো ব্যাগ আপনার কাছে পৌছে দিবে। না পাওয়া গেলে টিকেটে উল্লিখিত নীতিমালা অনুযায়ী আপনাকে ক্ষতিপূরণ দিবে।

Leave a Reply