বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যমের সূচকে নবম পর্তুগাল
সাতটি মাপকাঠিতে বিচার করে একটি দেশের সংবাদমাধ্যম কতটা স্বাধীনতা ভোগ করছে তা বোঝার চেষ্টা করে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস।

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যমের সূচকে নবম পর্তুগাল


ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী, পর্তুগাল :

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যমের সূচকে একধাপ এগিয়ে গেল পর্তুগাল। সম্প্রতি ২০২১ সালের মুক্ত গণমাধ্যম সূচক প্রকাশ করেছে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স (আরএসএফ)। এতে ১০ দশমিক ১১ পয়েন্ট পেয়ে মোট ১৮০টি দেশের নবম স্থানে অবস্থান করছে পর্তুগাল।

২০২০ সালে এই সূচকে পর্তুগালের অবস্থান ছিল ১০ নম্বরে। এ বছর পর্তুগাল এক ধাপ এগিয়ে গিয়েছে। এতে নিঃসন্দেহে বলা যায় পর্তুগালে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা এবং সাংবাদিকদের কর্মপরিবেশ উন্নতির দিকে। ১৮০টি দেশের মধ্যে শীর্ষ ১০-এ অবস্থান করা পর্তুগালের সাংবাদিকদের স্বাধীনতার প্রশ্নে একটি মাইলফলক। প্রতিবেশী দেশ স্পেনের অবস্থান যেখানে ২৯ নম্বরে। সূচকে শীর্ষ দশে ইউরোপের সাতটি দেশ রয়েছে।

সাতটি মাপকাঠিতে বিচার করে একটি দেশের সংবাদমাধ্যম কতটা স্বাধীনতা ভোগ করছে তা বোঝার চেষ্টা করে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস। এগুলো হচ্ছে- সংবাদমাধ্যমে বহু মতের প্রকাশ, সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ, পরিবেশ ও স্ব-আরোপিত সেন্সরশিপ, আইনি কাঠামো, সংবাদমাধ্যমের কাজে স্বচ্ছতা, অবকাঠামো, সংবাদকর্মীদের ওপর নিপীড়ন। সর্বমোট ১০০ এর মধ্যে যাদের নম্বর কম তাদের অবস্থান ক্রমান্বয়ে ভালো হিসেবে বিবেচিত হয়। পর্তুগালের স্কোর ১০ দশমিক ১১ নম্বর পেয়ে অবস্থান ৯ম।

ওয়ার্ল্ড প্রেস সূচকে একটি ভয়াবহ চিত্র উঠে এসেছে। সূচকের ১৮০টি দেশের মধ্যে ৭৩ শতাংশেই জাতীয় সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা রয়েছে। বলতে গেলে ওইসব সংবাদমাধ্যম পুরোপুরি স্বাধীনভাবে সংবাদ পরিবেশন করতে পারে না। বেশকিছু সংবাদকর্মীরাও ব্যক্তিগত উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে দেশের জনগণকে ধোঁকা দেওয়ার চেষ্টা করেন।

এদিকে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা সূচকে গত এক বছরে বাংলাদেশের অবস্থান আরও এক ধাপ পিছিয়েছে। রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারসের করা এই বার্ষিক সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান এবার ১৮০ দেশের মধ্যে ১৫২তম।

Leave a Reply