মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসী কর্মীদের বৈধতার  সুযোগ
সার্ভিস সেক্টরেও মালয়েশিয়ায় বৈধ হতে পারবেন অবৈধ অভিবাসী কর্মীরা। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) এক বিবৃতিতে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামজাহ জয়নুদিন ।

মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসী কর্মীদের বৈধতার সুযোগ

ইমিগ্রেশন নিউজ ডেস্ক :

থ্রি-ডি সেক্টরের পাশাপাশি সার্ভিস সেক্টরেও মালয়েশিয়ায় বৈধ হতে পারবেন অবৈধ অভিবাসী কর্মীরা। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) এক বিবৃতিতে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামজাহ জয়নুদিন এ তথ্য জানিয়েছেন। 

এর আগে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যৌথ ওয়ার্কিং কমিটির এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সেরি হামজাহ জয়নুদিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মানবসম্পদ মন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারাভানান।
 
চলমান রিক্যালিব্রেসি প্রোগ্রাম বাস্তবায়ন ও সফল করতে নিয়োগকর্তার পাশাপাশি বেসরকারি কর্মসংস্থান সংস্থা আইন ১৯৮১ (আইন ২৪৬) এর অধীন লাইসেন্সপ্রাপ্ত বেসরকারি কর্মসংস্থান এজেন্সিগুলোকে (এপিএস) সম্পৃক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বৈঠকে।

গত বছরের ১৬ নভেম্বর অবৈধ অভিবাসী কর্মীদের বৈধতা দিতে রিক্যালিব্রেশন প্রোগ্রাম নামে একটি প্রোগ্রাম চালু করে সরকার। এ প্রোগ্রামে নিবন্ধন ও স্বেচ্ছায় দেশে প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া চলবে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত।

রিক্যালিব্রেসি প্রক্রিয়া প্রথমে শুধু নির্মাণ, উৎপাদন, চাষ ও কৃষিখাতে সোর্সকান্ট্রি বাংলাদেশসহ ১৫টি দেশের অবৈধ বিদেশি কর্মীদের বৈধতার জন্য তাদের নিয়োগকর্তারা অনলাইনে আবেদন করার কথা থাকলেও এখন থেকে সার্ভিস সেক্টরের চারটি সাব সেক্টর- রেস্তোরাঁ, কার্গো, পরিষেবা এবং হোলসেল ও রিটেইলারে আবেদন করতে পারবেন। তবে এ ক্ষেত্রে নিয়োগকর্তারা সরাসরি ইমিগ্রেশন ও লেবার ডিপার্টমেন্টের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করতে হবে।

এর আগে ২০১১ সালে ৬পি এবং ২০১৬ সালে রি-হায়ারিং প্রোগ্রামে নাম নিবন্ধন করেও বৈধ হতে পারেননি  যেসব কর্মী, বৈধতা নিতে তারাও নিবন্ধিত হতে পারবেন বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন।

এছাড়া যেসব কর্মী তাদের কোম্পানি থেকে পালিয়ে অন্যত্র চলে গেছেন, তাদের বিরুদ্ধে কোম্পানি কর্তৃক যদি কোনো রিপোর্ট না থাকে, তাহলে তারাও বৈধ হতে পারবেন। এদিকে রিক্যালিব্রেশন প্রোগ্রামে এ পর্যন্ত এক লাখ ৪৫ হাজার ৮৩০ জন অভিবাসী কর্মী নিবন্ধিত হয়েছেন। এর মধ্যে ৭৩ হাজার ৫০৬ জন বৈধতা পেতে নিবন্ধন করেছেন এবং ৭২ হাজার ৩২৪ জন অভিবাসী তাদের নিজ নিজ দেশে ফিরে যেতে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

Leave a Reply