সংকটকালে প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের দাবি
করোনা সংকটকালে প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব মালয়েশিয়া।

সংকটকালে প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের দাবি

আহমাদুল কবীর, মালয়েশিয়া :

করোনা সংকটকালে প্রবাসীদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব মালয়েশিয়া। শনিবার (১২ জুন) মালয়েশিয়ার স্থানীয় সময় রাত ১০টায় সংগঠনের ভার্চুয়াল সভায় এ দাবি তুলেন বক্তারা। 

বক্তারা বলেন, মহামারি কোভিড-১৯ সময়ে প্রবাসীদের যে সমস্যাগুলো সামনে এসেছে সেগুলো চিহ্নিত করে সরকারের কাছে আমরা প্রবাসীদের হয়ে তাদের এবং তাদের পরিবারের সুরক্ষা নিশ্চিতে দাবি রাখতে পারি। যেসব দেশে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রয়েছে, দ্রুত সময়ে ফ্লাইট চলাচলের সংকট উত্তরণে কূটনৈতিক তৎপরতা জোরদার করার দাবি জানাচ্ছি।

এ ছাড়া করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেশে ছুটিতে থাকা কর্মীদের ফিরিয়ে নেয়ার সুযোগ তৈরি হবে। সেজন্য ছুটিতে এসে আটকেপড়া প্রবাসীদের অগ্রাধিকারভিত্তিতে করোনা টিকা প্রদান করলে তাদের জন্য কাজে ফিরতে অনেকটা সহজতর হবে বলে আলোচকরা মত ব্যক্ত করেন।

আলোচনায় অংশ নেন সেন্টার ফর এনআরবির চেয়ারপার্সন এম এস সেকিল চৌধূরী, এটিএন বাংলার কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এডিটর কেরামত উল্লাহ বিপ্লব, ব্র্যাকের মাইগ্রেশন প্রধান শরিফুল হাসান।

প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন, দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড এর স্টাফ করেসপন্ডেন্ট মীর মোহাম্মদ জসীম, কানাডার ইমিগ্রেশন নিউজ ২৪ এর সম্পাদক উজ্জ্বল দাস, অনুপম নিউজ ২৪ ইউকের সম্পাদক ও প্রকাশক মুহিব উদ্দিন চৌধূরী, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব মালয়েশিয়ার সিনিয়র সহ-সভাপতি, যমুনা টিভি ও দৈনিক যুগান্তরের মালয়েশিয়া প্রতিনিধি আহমাদুল কবির, রেড লাইভ নিউজের সম্পাদক তাহমিনা বারী রিনি, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব মালয়েশিয়া যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও নিউজ ২৪ ও দৈনিক আমাদের সময়ের মালয়েশিয়া প্রতিনিধি শাহাদাত হোসেন এবং বাংলাদেশ প্রেসক্লাব অব মালয়েশিয়ার তথ্য-গবেষণা সম্পাদক ও কালের কলম অনলাইন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক আরিফুল ইসলাম।

মালয়েশিয়ায় গত বছরের মার্চ মাস থেকেই করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে লকডাউনসহ বিভিন্ন কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করে সে দেশের সরকার। তারই ধারাবাহিকতায় অনেকেই ছুটিতে গিয়ে আর ফিরে আসতে পারেননি কর্মস্থলে। অন্যদিকে ছুটিতে থাকা প্রবাসীরা জানেন না কবে তারা কর্মস্থলে আসতে পারবেন। তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই আবার দেশটিতে প্রবেশ করতে পারবেন বলে ধারণা সবার।

এ ছাড়া কুয়ালালামপুর বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে এমআরপি সার্ভিসের মাধ্যমে অনলাইনে পাসপোর্টের তথ্যাদি ঢাকায় পাঠালে ঢাকা থেকে সময়মতো প্রিন্ট হয়ে পাসপোর্ট মালয়েশিয়ায় না আসায় সেবা প্রত্যাশীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। রেমিট্যান্স যোদ্ধারা আশায় রয়েছেন কবে পাসপোর্ট হাতে পাবেন। 

এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে সংশ্লিষ্টদের সুদৃষ্টি দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে আলোচকরা বলছেন, মালয়েশিয়া প্রবাসীরা আগের মতো দ্রুততম পাসপোর্ট হাতে পেয়ে বৈধতার সুযোগ নেবেন এবং অন্যরা ভিসা নবায়ন করে নেবেন।

এবারের বাজেটে রেমিট্যান্স প্রণোদনা শতকরা ২ থেকে ৪ শতাংশ করারও আহ্বান জানানো হয় আলোচনা থেকে। আলোচকরা প্রবাসে কর্মরতদের রেমিট্যান্স যোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি ও বিনা খরচে দেশে লাশ পাঠানোসহ সবার জন্য পেনশন ভাতার প্রস্তাব জানান।

Leave a Reply