সাগরেই সলিল সমাধি অনেক অভিবাসনপ্রত্যাশীর
অভিবাসনের আশায় সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বাড়ছে: জাতিসংঘ।

সাগরেই সলিল সমাধি অনেক অভিবাসনপ্রত্যাশীর

ইমিগ্রেশন নিউজ ডেস্ক :

অভিবাসনের আশায় সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বাড়ছে। এ তথ্য জানিয়েছে জাতিসংঘ। অবস্থার পরির্বতনে সংশ্লিষ্ট দেশগুলিকে অভিবাসনের জন্য বৈধ ও নিরাপদ পথ আরো শক্তিশালী করার আহ্বান করেছে সংস্থাটি।

সম্প্রতি স্পেনের টেনেরিফে দ্বীপ সংলগ্ন সমুদ্রে নৌকাডুবির ঘটনার পর এক বিবৃতিতে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউনাইটেড নেশনস হাইকমিশন ফর রিফিউজি (ইউএনএইচসিআর) এবং ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অফ মাইগ্রেশন (আইওএম) জানায়, সাগরে শরণার্থী ও অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিহতের সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। টেনেরিফের এই দুর্ঘটনায় ২৪ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু হয় বলে জানা গেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘স্পেনের ক্যানারি দ্বীপ সংলগ্ন সাগর ও পশ্চিম ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে দুর্ঘটনায় প্রায় ২০০ জন নিহত হয়েছেন। যার মধ্যে অন্তত আট জন শিশু।’

গত জানুয়ারি মাস থেকে এপর্যন্ত চার হাজার তিনশ’রও বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশী সমুদ্র পথে এসে স্পেনের ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে আশ্রয় নিয়েছেন। এর মধ্যে অভিভাবকহীন শিশুও রয়েছে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়। সমুদ্রপথে পশ্চিম আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে এই দ্বীপপুঞ্জের দূরত্ব ৪০০ থেকে ১৫০০ কিলোমিটার। বছরের এই সময়ে উত্তাল সাগর আর সমুদ্রপথের এমন দূরত্ব, চলতি পথে খাবার ও বিশুদ্ধ পানির অভাব ইত্যাদি মিলে এটি একটি বিপজ্জনক যাত্রাপথ বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

শুধুমাত্র ২৩ এপ্রিল থেকে ২৫ এপ্রিল সময়ে স্পেন সরকারের নিরাপত্তারক্ষীরা ক্যানারির দক্ষিণাঞ্চলের সাগর থেকে ২০০ জনকে উদ্ধার করেছে। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক এই সংস্থা দুটি স্পেন সরকার ও দেশটির নিরাপত্তারক্ষীদের জীবন বাঁচাতে তাদের কার্যক্রমের জন্য ধন্যবাদ জানায়।

বৈধ পথ শক্তিশালী করার আহ্বান

এদিকে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা দুটি সব দেশকেই বিপজ্জনক এমন পথের বিকল্প হিসেবে অভিবাসনের জন্য বৈধ ও নিরাপদ পথকে আরো শক্তিশালী করার আহ্বান জানিয়েছে। ‘‘বিভিন্ন দেশের সরকার, আঞ্চলিক ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষের উচিত মানবপাচার থামাতে নিজেদের মধ্যে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা আরো বাড়ানো।’’

Leave a Reply