১২ লক্ষ অভিবাসী নেবে কানাডা কিন্তু কিভাবে?

১২ লক্ষ অভিবাসী নেবে কানাডা কিন্তু কিভাবে?

রিজওয়ান রহমান, ব্যারিস্টার এন্ড সলিসিটর, টরন্টো, কানাডা।

অভিবাসনের সম্ভাবনাময় দুয়ার খুলছে কানাডা কিংবা ১২ লক্ষ লোক নিচ্ছে কানাডা। এমন নজরকাড়া বিজ্ঞাপন দেখছি বিগত বেশ কিছুদিন ধরে। অনেকগুলো ফোন কল আর ইমেইল পেয়েছি কানাডা ফেডারেল সরকারের ইমিগ্রেশন বিষয়ক একটি ঘোষণার পর থেকে। যেখানে অনেকেই জানতে চেয়েছেন, আগামী ৩ বছরে কানাডা ১২ লক্ষ অভিবাসী নিবে এই সম্পর্কে জানতে। গত অক্টোবরের শেষের দিকে ব্যাপক আকারে ঘোষণাটি ছড়িয়ে পড়ে, বিশেষ করে সেইসব দেশগুলোয়, যেখান থেকে ঐতিহাসিক ভাবেই ইমিগ্র্যান্টদের আগমন বেশি হয় (লিখার সুবিধার্থে চলুন ঐসব দেশগুলোকে আপাততঃ “ইমিগ্র্যান্ট প্রোভাইডার” দেশ বলি)। আমাদের বাংলাদেশও এমন একটি ইমিগ্র্যান্ট প্রোভাইডার দেশ।

গত কিছুদিন পাওয়া ফোন কল আর ইমেইলে একটা বিষয় পরিষ্কার, দেশে কথা ছড়িয়ে গেছে যে কানাডা “গণহারে” মানুষ নেবে। ১২ লক্ষ – সংখ্যাটাও খুব একটা ছোট তো না। তবে সাধারণ মানুষ যাতে প্রতারিত না হোন, কথার ভোজবাজিতে পরে অর্থনাশ না করেন, তাই এ নিয়ে দু-কলম লিখাটা জরুরী মনে করছি।

কানাডা ফেডারেল সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী ১২ লক্ষ লোক আনার লক্ষ্যমাত্রা-র খবরটা ঠিক, সেক্ষেত্রে কোন সন্দেহ নেই। তবে এটা কোনোভাবেই স্বাভাবিকের চেয়ে অতিরিক্ত ১২ লক্ষ নয়। কানাডা এমনিতেই প্রতি বছর পুরো বিশ্ব থেকে প্রায় ৩ লক্ষ ইমিগ্র্যান্ট গ্রহণ করে। গত পাঁচ বছরের হিসাবটা একটু দেখতে হবে তথ্যের দিকে একটু তাকান। স্টাটিস্টিয়ার দেয়া তথ্য অনুযায়ী পুরো বিশ্ব থেকে কানাডাতে ২০১৫ সালে ২৪১,০০০ জন, ২০১৬ সালে ৩২৩,০০০ জন, ২০১৭ সালে ২৭৩,০০০ জন, ২০১৮ সালে ৩০৪,০০০ জন, ২০১৯ সালে ৩১৪,০০০ জন ইমিগ্রান্ট এসেছেন। স্টাটিস্টিয়া সাধারণত তাদের ডাটা ইন্টেগ্রিটি বজায় রাখার জন্য একটু রক্ষণশীল সংখ্যা প্রকাশ করে। এর মানে হলো, স্বভাবিক সময়ের প্রতি বছরে প্রকৃত ইমিগ্রান্টের সংখ্যা খানিকটা বেশিই হবে। তবে করোনা পেনডেমিক এর কারণে ২০২০ এ এই সংখ্যাটা প্রায় অর্ধেকের চেয়েও নিচে নেমে এসেছে। যদিও সরকার এখনো ২০২০ এর সঠিক সংখ্যাটি প্রকাশ করেননি, তবে এটা হয়তো ১ লক্ষ ৫০ হাজার এর আশেপাশেই হবে। তো এখানে স্বাভাবিকের চেয়ে কম এসেছে প্রায় দেড় লক্ষ লোক।

এখন চলুন আগামী তিন বছরের হিসাবটা করতে একটু সাধারণ গণিতের চর্চা করি। প্রতি বছর ৩ লক্ষ করে হলে ৩ বছরে হয় ৯ লক্ষ। ২০২০ এর ঘাটতি দেড় লক্ষ এর সাথে যোগ করুন, হবে ১০ লক্ষ ৫০ হাজার। তাহলে ১২ লক্ষ হতে আর বাকি থাকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার। অর্থাৎ গড়ে প্রতি বছর ৫০ হাজার। এই হলো আসল হিসাব। ১২ লক্ষ না, প্রতি বছর আসলে মাত্র ৫০ হাজার অতিরিক্ত (স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে) ইমিগ্রান্ট গ্রহণ করবে কানাডা। পাঠকের দৃষ্টিসীমাটা আর একটু বাড়িয়ে দিতে আর একটা তথ্য যোগ করি।

কানাডা যেহেতু নিজের প্রয়োজনেই বিশ্বের অন্যতম ইমিগ্র্যান্ট গ্রহীতা দেশ, তাই আপাতঃ দৃষ্টিতে “ইমিগ্র্যান্ট অবান্ধব” কনজারভেটিভ সরকারের সময়ও এই ট্রেন্ড এর খুব একটা হেরফের হয়নি। যেমন ২০১১ সাল থেকে বছরওয়ারি তথ্যটা যদি একটু দেখি : ২০১১ সালে ইমিগ্র্যান্ট এসেছেন ২৬০,০০০ জন; ২০১২ সালে ২৬০,০০০ জন; ২০১৩ সালে ২৬৩,০০০ জন; ২০১৪ সালে ২৬৮,০০০ জন; ২০১৫ সালে ২৪১,০০০ জন। দেখবেন, সময়ের সাথে সংখ্যাটা এমনিতেই সামান্য উঠা-নামা করে যেটা স্বাভাবিক, ঠিক যেমন অন্যান্য অনেক সূচকের বেলাতেও ঘটে।

এখন আরেকটি বিষয়ে বলতে চাই। এই যে তিন লক্ষ অথবা সাড়ে তিন লক্ষ অভিবাসী আসেন, এটা কিন্তু সব ক্যাটাগরি মিলিয়ে। অর্থাৎ, স্কীলড ওয়ার্কার, ইনভেস্টর, ফ্যামিলি (স্বামী/স্ত্রী, বাবা-মা এমন সব স্পন্সরড আত্মীয়), রিফ্যুজি সহ অন্য সব ক্যাটাগরি মিলিয়ে এই সংখ্যাটা। ফেডারেল সরকারের অভিবাসন মন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী আগামী বছরের লক্ষ্যমাত্রাটার বিশ্লেষণ করলেই বিষয়টা আর একটু খোলাসা হবে।

আগামী বছর সরকারি পরিকল্পনা অনুযায়ী ইকোনোমি ক্লাস (অর্থাৎ স্কীলড, বিজনেস ইত্যাদি) এ ২ লক্ষ ৩২ হাজার, ফ্যামিলি ক্লাস (স্বামী/স্ত্রী, বাবা-মা, দাদা-দাদী/নানা-নানী অথবা কিছু কিছু ক্ষেত্রে অন্য আত্মীয়) এ ১ লক্ষ ৪ হাজার; রেফিউজি ক্লাস এ ৬০ হাজার আর হিউমেনিটারিয়ান গ্রাউন্ড এ আরো ৬ হাজার; তো সর্বমোট প্রায় ৪ লক্ষ। সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী ২০২১ সালে লক্ষ্যমাত্রা সর্বমোট ৪০১,০০০ জন, ২০২২ সালে ৪১১,০০০ জন এবং ২০২৩ সালে ৪২১,০০০ জন ইমিগ্রান্ট হয়ে কানাডা আসার সুযোগ পাবেন। ২০২১ এর হিসাবটা তো বিস্তারিত লিখলাম। ২০২২ এবং ২০২৩ এর মোট সংখ্যাটাও ওই অনুপাতেই বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করে দেয়া হবে বলেই জানি। তবে এ সবই পরিকল্পনা। করোনা পরিস্থিতি যেভাবে খারাপের দিকে মোড় নিচ্ছে, তাতে ২০২১ সালে লক্ষমাত্রার চেয়ে অনেক কম অভিবাসী আসলেও অবাক হবোনা।

আমার এই লিখাটার উদ্দ্যেশ্য কারও ইমিগ্রেশন এর স্বপ্নকে আঘাত করা নয়। আমি শুধু চাই, যাঁরাই কানাডা ইমিগ্রেশন নিয়ে আগ্রহী, তাঁরা যেন কোনো বিভিন্ন বাহারি বিজ্ঞাপনে প্রতারিত না হয়ে জেনে-বুঝে এর পরই সিদ্ধান্ত নেন।

আমার ধারণা, যে কঠিন মানদন্ডে কানাডার ইমিগ্রেশন এর আবেদনগুলো বিবেচিত হয়, সেই মানদন্ডের কোনো হেরফের হবেনা। পুরো বিশ্ব থেকে স্বাভাবিকের চেয়ে অতিরিক্ত মাত্র ৫০ হাজার আবেদন গ্রহণ করতে কানাডা সরকারকে আবেদন বিবেচনার মানদন্ডটি নড়ানোর কোনো প্রয়োজনই হবেনা একথা নিশ্চই সবাই বুঝবেন। তাই আগ্রহীদের প্রতি অনুরোধ, নিজেরা যথাযথ যাচাই-বাছাই করেই আবেদন সংক্রান্ত সিদ্ধান্তগুলো নেবেন।
অভিবাসন সকলের জন্য হোক নিরাপদ ও মর্যাদপূর্ণ।

This Post Has One Comment

  1. শেখ রাশেদ

    আপনার তথ্যগুলো ভালো লাগলো, আরো জানতে চাই কিভাবে যাওয়া যাবে সহজেই কানাডাতে এবং অন্যদেরকে উৎসাহিত করা যাবে!
    +8801912465407 হোয়াটসআপ

Leave a Reply