২৪ ঘন্টায় ভারতে সংক্রমণ পৌঁছে গেছে সাড়ে তিন লাখে
হাসপাতালগুলোয় অক্সিজেন সংকট। বিভিন্ন রাজ্যে রাত্রিকালীন কারফিউসহ বিভিন্ন কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

২৪ ঘন্টায় ভারতে সংক্রমণ পৌঁছে গেছে সাড়ে তিন লাখে

ই‌মি‌গ্রেশন নিউজ ডেস্ক :

ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ খুবই তীব্র। হাসপাতালগুলোয় অক্সিজেন সংকট। বিভিন্ন রাজ্যে রাত্রিকালীন কারফিউসহ বিভিন্ন কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। পাশাপাশি টিকাদান কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। এসবের পরেও প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃত্যুতে রেকর্ড হচ্ছে।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) শনাক্তের সংখ্যা পৌঁছে গেছে সাড়ে তিন লাখের দোরগোড়ায়। পাশাপাশি দৈনিক মৃত্যুও আড়াই হাজার ছাড়ালো এই প্রথমবার। গত ২৪ ঘণ্টায় দুলক্ষাধিক সুস্থ হয়ে উঠলেও গত এক সপ্তাহ ধরে সক্রিয় রোগী বাড়ছে এক লাখেরও বেশি।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান উল্লেখ করে স্থানীয় গণমাধ্যম শনিবার সকালে জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমিত হয়েছেন ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৭৮৬ জন। মোট আক্রান্ত হলেন ১ কোটি ৬৬ লাখ ১০ হাজার ৪৮১ জন।গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুর সংখ্যায় নতুন রেকর্ড তৈরি হয়েছে। শনিবার ২ হাজার ৬২৪ মৃত্যু হওয়ায় ভারতে মোট প্রাণ হারালেন ১ লাখ ৮৯ হাজার ৫৪৪ জন।

২৪ ঘন্টায় মৃত্যু: ২ হাজার ৬২৪, মোট মৃত্যু: ১ লাখ ৮৯ হাজার ৫৪৪, ২৪ ঘন্টায় শনাক্ত: ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৭৮৬, মোট আক্রান্ত : ১ কোটি ৬৬ লাখ ১০ হাজার ৪৮১। এ দিকে কোভিড সংক্রমণের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ভারতে বাড়ছে সংকটজনক রোগীর সংখ্যা। সেই সঙ্গেই তীব্রতর হচ্ছে হাসপাতালে শয্যার সংকট। অক্সিজেন নিয়ে হাহাকারের কথা আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে ইতিমধ্যে। সংকটে পড়েছে শ্মশান ও গোরস্থান কর্তৃপক্ষ। 

ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ গত ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুর দিকে আরম্ভ হয়। দেশটির বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এখন পিক বা চূড়ায় উপনীত হয়নি। ফলে দেশটিতে করোনার সংক্রমণ আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে। করোনার এই ঊর্ধ্বমুখী ধারা কবে নাগাদ নিম্নমুখী হতে পারে, সে সম্পর্কে দেশটির বিশেষজ্ঞরা নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না।

Leave a Reply